ঢাকা রবিবার, ৩ মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১৯ ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২১ শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

বিভাগসমূহ

ফুলবাড়ীতে ফেতরার টাকা নেওয়ার অজুহাতে বাড়িতে ঢুকে দুধর্ষ চুরি

মোঃ আফজাল হোসেন, দিনাজপুর প্রতিনিধি || ৭:৫৫ অপরাহ্ণ ॥ এপ্রিল ২৬, ২০২৩

ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের দক্ষিণ বাসুদেবপুরের হাজির মোড়ে ফেতরার টাকা নেওয়ার অজুহাতে সাবেক বিজিবি সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা জহির উদ্দিনের বাড়িতে ঢুকে ৩৮,৬০০ ইউএস ডলার,যার বাংলাদেশী মূল্য মূল্য ৪০ লক্ষ ৯১ হাজার ৬ শত টাকা, ও বাংলাদেশী ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা চুরি করে নেয় প্রতারক চক্র।
ফুলবাড়ী থানায় দায়েরকৃত এজাহার সূত্রে জানা গেছে প্রতারক চক্রের মূল হোতা স্থানীয় গড় ইসলামপুর (জোলাপাড়ার) বাসিন্দা রেনু প্রথমে জহির উদ্দিনের বাড়িতে প্রবেশ করেন ফিতরার টাকা নেওয়ার উদ্দেশ্য। জহির উদ্দিনের কাছ থেকে ফেতরার টাকা নিয়ে চলে যান মোছাঃ রেনু।
কিছুক্ষণ পর একই এলাকার ১০ জনকে সঙ্গে নিয়ে আবারও সেই বাড়িতে প্রবেশ করেন প্রতারক চক্রের মূল হোতা মোছাঃ রেনু।
বাড়িতে প্রবেশ করে মোছাঃ রেনু অভিযোগ করেন ৮৯ বছর বয়সি জহির উদ্দিন তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করেছে এই মর্মে জহিরদ্দিনের কাছ থেকে এক লক্ষ টাকা দাবি করেন প্রতারক চক্রের অন্যান্য সদস্যরা।
জহিরদ্দিন টাকা দিতে অস্বীকার করলে তারা জহির উদ্দিনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দিবেন মর্মে হুমকি প্রদান করেন, একপর্যায়ে তারা জহির উদ্দিনের ঘরে লুটপাট শুরু করেন, সেখান থেকে ১২ হাজার টাকা লুট করে প্রতারক চক্রের সদস্যরা, এরপর জহির উদ্দিনের ছোট ছেলে সালাউদ্দিন রিপনের ঘরে গিয়ে আলমারিতে রাখা ৩৮ হাজার ৬০০ ইউএস ডলার লুট করে নেয় প্রতারক চক্রের সদস্যরা।
চিৎকার চেঁচামেচি শুনে স্থানীয় দুইজন এগিয়ে আসলে তাদেরকে মারধর করে পালিয়ে যায় প্রতারক চক্রের সদস্য বৃন্দ।
মোবাইল ফোনে ঘটনার খবর পেয়ে তৎক্ষণিক ছুটে আসেন জহির দিনের পরিবারের সদস্য বৃন্দ , প্রত্যক্ষদর্শীদের মুখে ঘটনার সত্যতা জেনে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং সাক্ষী গনকে নিয়ে ফুলবাড়ী থানায় এজাহার দায়ের করেন জহিরদ্দিনের বড় ছেলে মহিউদ্দিন।
অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডলার এবং টাকা উদ্ধার করতে মাঠে নামেন ফুলবাড়ী থানা পুলিশের একদল চৌকস অফিসার।
ঘটনার খবর জেনে দিনাজপুর জেলার পুলিশ সুপার তৎক্ষণিক দিনাজপুর সদর সার্কেলের অফিসার শেখ মোঃ জিন্নাহ্ আল মামুন কে ঘটনা পরিদর্শনের নির্দেশ দেন।
পুলিশ সুপারের নির্দেশে সদর সার্কেল ঘটনা পরিদর্শন করেন, এবং দ্রæত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে ফুলবাড়ী থানা পুলিশকে নির্দেশ প্রদান করেন।
পরে ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ আশ্রাফুল ইসলাম এর নেতৃত্বে কয়েক ঘণ্টার মধ্যে ফুলবাড়ী থানা পুলিশের চৌকস অফিসার আরিফুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে কিছু ডলার এবং টাকা উদ্ধার করতে সক্ষম হন।
চলমান অভিযানে ২৫ এপ্রিল রাতেই সমস্ত ডলার এবং টাকা উদ্ধার করেন ফুলবাড়ী থানা পুলিশ। পাশাপাশি অভিযুক্ত ছয় আসামিকে গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিষয়ে প্রেস ব্রিফিং করেন দিনাজপুর সদরের সার্কেল শেখ মোহাম্মদ জিন্না আল মামুন, সঙ্গে ছিলেন ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ আশ্রাফুল ইসলাম ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আরিফুল ইসলাম প্রেস ব্রিফিং শেষে গ্রেফতারকৃত আসামিদের ২৬ মার্চ দুপুরে বিজ্ঞ আদালতে সোফর্দ করা হইয়াছে।
গ্রেফতারকৃত আসামিরা হলেন ১। মোছাঃ রেনু, ২। নাহিদ হাসান শুভ,৩। সোহানুর রহমান সোহাগ,৪। সুজন ৫।মেনাজুল ৬। আব্দুল জলিল,৭। আনোয়ারুল মন্ডল,৮। জাহিদুল ইসলাম রুবেল,৯। কামরুজ্জামান,১০। শামিম ১১।নবিউল ইসলাম। সকলের বাড়ি ফুলবাড়ীর হাজির মোড় ও পশ্চিম গৌরিপাড়া এলাকায়। ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আশ্রাফুল ইসলাম জানান, ঘটনা শুনার পর তাৎক্ষনিক অভিযান শুরু করি এবং শক্ত হাতে আসামিদেরকে গ্রেফতার ও নগদ অর্থ সহ ডলার উদ্ধার করি। এই ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

সম্পাদক ও প্রকাশক

 

ওয়েবসাইট: www.prothomdesh.com